Sun. Dec 6th, 2020

করোনাসহ সংক্রামক রোগের বাহক, যত্রতত্র থুতু-কফ ফেলা বন্ধ করার দাবী।

নিজস্ব প্রতিনিধি:: মোঃ আনোয়ার হোসেন

পরিবেশ আন্দোলন মঞ্চ এর শুভেচ্ছা নিন। বাংলাদেশে শীতের সময় করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে আশংকা দেখা যাচ্ছে। ভাইরাসটি মূলত কফ, থুতু, হাঁচি, কাশি এবং ঘরের বাহিরে মাস্ক বিহীন যাতায়াতের মাধ্যমে ছড়ায়। যত্রতত্র থুতু, কফ ফেলা, মাস্ক বিহীন চলাফেরা এবং হাঁচি, কাশির মাধ্যমে করোনা ভাইরাসসহ শ্বাসকষ্ট, ব্রংকাইটিস, হাঁপানি বা অ্যাজমা, সার্চ, মার্স, যক্ষা, কাশিসহ বহু রোগের বিস্তার ঘটায়। কফ থুতর মাধ্যমে এ সমস্ত অনেক রোগ দ্রুত সাধারণ মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পরার আশংকা থাকে। করোনা ভাইরাস এর ভ্যাকসিন অথবা ওষুধ এখন পর্যন্ত না আসায় ভাইরাস মোকাবেলায় প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার ওপর জোর দিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞগন । করোনা নিয়ে আশংকা নয় দরকার সঠিক সচেতনতার। কাজেই কফ, থুতু, হাঁচি, কাশি নিয়ন্ত্রণ করে ঘরের বাহিরে মাস্ক ব্যবহার করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে এই ভাইরাসটির সংক্রমণ ও বিস্তারের ঝুঁকি কমিয়ে আনা সম্ভব। আজ ২০ নভেম্বর ২০২০ শুক্রবার, সকাল ১০:৩০ টায় রাজধানীর হাজারীবাগ ম্যাটাডোর ওয়েলনেস সেন্টার এর সামনে পরিবেশ আন্দোলন মঞ্চ, সুবন্ধন সামাজিক কল্যান সংগঠন, সচেতন নগরবাসী এর যৌথ উদ্যোগে “করোনার দ্বিতীয় ঢেঊ মোকাবেলায় সচেতনতামূলক প্রচারণা এবং মাস্ক বিতরণ কর্মসূচীতে বক্তারা উক্ত অভিমত ব্যক্ত করেন।
সুবন্ধন সামাজিক কল্যান সংগঠনের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব এর সভাপতিত্বে কর্মসূচীতে বক্তব্য প্রদান করেন পরিবেশ আন্দোলন মঞ্চ এর সভাপতি আমির হাসান মাসুদ, সচেতন নগরবাসীর সভাপতি জি.এম রোস্তম খান, বাংলাদেশ সাইকেল লেন বাস্তবায়ন পরিষদের সভাপতি আমিনুল ইসলাম টাব্বুস, আমরা দূর্বার সংগঠনের সভাপতি আব্দুস সালাম সময়, সুবন্ধনের সাধারন সম্পাদক মকবুল হোসেন, সহ-সাধারন সম্পাদক মহসীন সুমন, সচেতন নগরবাসীর সহ-সভাপতি রুহুল আমিন, জাহিদুর রহমান, নাসফের মতিউর রহমান, পরিবেশ আন্দোলন মঞ্চের সদস্য সফায়েত শেখ, হৃদয় আহম্মেদ প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, শীতকালে বিভিন্ন ভাইরাস যুক্ত ছোট বায়ুকণা অধিক সময় বাতাসে ভেসে বেড়ায় ফলে অধিক মানুষ সংক্রমিত হওয়ার আশংকা থাকে। শীতকালে সাধারণত ঠান্ডাজনিত অসুখ হয়ে থাকে যেমন- ফ্লু, শ্বাসনালী-ফুসফুসের দীর্ঘস্থায়ী রোগ। যখন অন্য একটি ভাইরাস সংক্রমিত করে তখন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সহজ হয়ে যায়। কফ থুতু রোগের সংক্রমক এটা যেখানে সেখানে ফেলার কারনে অনেক রোগের উৎপত্তি হয়। যেহেতু এটি ভেজা অবস্থায় থাকে সেক্ষেত্রে ভাইরাসটি ও জীবিত থাকে অনেক বেশি এর ফলে সরাসরি বাতাসের সংস্পর্শে এসে ভাইরাস ছড়াতে পারে। জনসমক্ষে থুতু ফেলাকে বিশ^জুড়ে সবচেয়ে বিরক্তিকর কাজগুলোর একটি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যত্রতত্র থুতু ফেলা নিষিদ্ধ করে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া এমনকি ভারতেও কিছু এলাকায় আইন হয়েছে এবং জরিমানারও বিধান রয়েছে। বাংলাদেশে এই ধরণের আইন নেই এবং সচেতনতা তৈরিরও কোন উদ্যোগ চোখে পড়েনা। বাংলাদেশের অনেক সমস্যার মাঝে যেখানে সেখানে থুতু ফেলাটা হয়তো সামান্য মনে হতে পারে কিন্তু এর কারনে আর্থিক ও সামাজিকভাবে একটা দেশ অনেক ক্ষতির শিকার হচ্ছে। এই সমস্যাটি সমাধান সম্ভব শুধু প্রয়োজন একটু সচেতনতা এবং প্রত্যেকের প্রাত্যহিক জীবনে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা।
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ রুখতে হলে এই মুহূর্তে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই। সবার মাস্ক পড়া এই সময়ে অত্যন্ত জরুরি।এ সময়ে মাস্ক ব্যবহারকে বলা হচ্ছে সামাজিক ভ্যাকসিন।
উল্লেখ্য কর্মসূচী থেকে দুইশতাধিক লোকের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়।

সুপারিশসমূহ ঃ
১. ঘরের বাহিরে যাতায়াতে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা এবং জরিমানার বিধান করা।
২. যত্রতত্র থুতু কফ ফেলা নিষিদ্ধ করে আইন এবং জরিমানা বিধান করা।
৩. নির্দিষ্ট স্থান ব্যতীত থুতু কফ ফেলা বন্ধ করার বিষয়ে সচেতনতামূলক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।
৪. থুতু কফ যেখানে সেখানে না ফেলে রাস্তার পাশে ডাস্টবিনে ফেলতে উৎসাহিত করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

উপদেষ্টা মন্ডলীঃমোঃ দেলোয়ার হোসেন খাঁন(হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ,প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান)
ডঃ দিলিপ কুমার দাস চৌঃ ( অ্যাডভোকেট,সুপ্রিম কোর্ট ঢাকা)
রজত কান্তি চক্রবর্তী সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতিঃ অ্যাডভোকেট সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী ।।আইন সম্পাদকঃ অ্যাডভোকেট আবু সালেহ চৌধুরী।।
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: আজির উদ্দিন (সেলিম)
নির্বাহী সম্পাদক: মোস্তাক আহমদ।। ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মোঃ দিলোয়ার হোসেন ।I মহিলা সম্পাদক: মোছাঃ হেপি বেগম ।I বার্তা সম্পাদক: .........................
প্রধান কার্যালয় ২/২৫, ইস্টার্ণ প্লাজা,৩য়-তলা ,আম্বরখানা সিলেট-৩১০০।
+8801712-783194 ... 01304006014 dailyhumanrightsnews24@gmail.com
JS security