Sat. Oct 1st, 2022

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বদৌলতে পরিস্থিতি অনুকূলে ……… কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা কাকুলি রানী মিস্ত্রীরিকে চাকুরী থেকে অভ্যাহতি প্রদান

 স্বরুপকাঠি     প্রতিনিধি :

শ্রেণি কক্ষে ছাত্রীদের বোরখা পড়া নিয়ে স্বরূপকাঠি উপজেলার মধ্যে কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকা মহা দাম্ভিকতা দেখানোর গুরুত্বপূর্ণ অভিযোগ উঠেছে। পাশাপাশি শ্রেনী কক্ষে  কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সামনে ইসলাম ধর্ম সহ নানান বিষয়ে কটুক্তি মূলক আচরণও করে।এমনকি  মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাঃ) এর  জীবনী নিয়েও বাজে মন্তব্য করতেও দ্বিধা বোধ করেনি। এক পর্যায়ে মুসলমানদের   বোরখা উপরও বাজে মন্তব্য করেন। এমনকি মুসলমানদের দাড়ি টুপি নিয়েও কটুবাক্য বলেন।আর এহেনও   আপত্তিকর আলোচনায় ক্ষুব্ধ কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের  কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।এক পর্যায়ে মেয়েরা সমগ্র বিষয়টি মা বাবার কাছে বলেন। ঠান্ডা মাথার সবকিছু অবলোকন করেন। এরপর বেশকিছু অভিভাবকরা কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ করেন। এক পর্যায়ে প্রধান শিক্ষক স্কুল কমিটির কাউকে না ডেকে কোন ধরনের শাস্তি না দিয়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন। আর সেই ঘটনা নিয়ে গত সোমবার  স্বরূপকাঠি উপজেলার মধ্যে জলাবাড়ী ইউনিয়নের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের  পরিবেশ দারুণ উত্তপ্ত হয়ে উঠে।প্রতিবাদের মাত্রা বাড়তে থাকে। এদিকে স্বরূপকাঠি প্রেসক্লাবের সহ সভাপতির কাছে সংবাদ আসে কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষিকা কোরান অবমাননা করে। বিষয়টি নিয়ে সরেজমিনে কামারকাঠী গ্রামের মধ্যে যান বিকেল বেলা। স্কুল পড়ুয়া বালিকাদের জবান বন্দি নেন ভিডিও আকারে। এরপর জেলার গণ মাধ্যম কর্মী উপজেলা আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতাকে বিষয়টি অবগত করেন। উপজেলার শীর্ষ নেতা স্পর্শ কাতর বিষয় নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেনের সাথে আলোচনা করেন।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করেননি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেন। আর সেই ঘটনা নিয়ে মঙ্গলবার সকাল নয় ঘটিকার মধ্যে  উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর সভার মেয়র, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাজির হন সরাসরি কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে।সমগ্র বিষয়টি যেহেতু স্পর্শ কাতর তাই কেহ যেন রাষ্ট্রের ক্ষতি সাধন না করতে পারে। সেই দিকে প্রশাসনের কড়া নজরদারি ছিল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেন কেন  বাড়তি মিথ্যা  অপপ্রচার না করে। অবশ্য  গত সোমবারের ক্লাশ রুমের ঘটনা নিয়ে তোলপাড় কামারকাঠী বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিবেশ। আর সেই কারণে মঙ্গলবার  সকাল থেকেই কয়েক শতাধিক অভিভাবক সহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের লোকজন সমবেত হয় স্কুলের আঙ্গিনায়। অবশ্য  স্থানীয় প্রশাসনের কড়া নজরদারি এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেনের চমৎকার  দৃষ্টি ভংগির কারণে সমগ্র বিষয়টি অনুকূলে আনা হয় স্কুল মিলনায়তন কক্ষের সভায়।যদিও বেশ কয়েকজন ( প্রত্যক্ষ সাক্ষী)  কেমলমতি শিক্ষার্থীদের জবানবন্দিতে অভিভাবকদের অভিযোগের সত্যতা মিলল। শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত হয় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জবানবন্দিতে। এসময়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আঃ হক, পৌরসভার মেয়র জি এম কবির, নেছারাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবির মোঃ হোসেন সহ সুশীল সমাজের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। পাশাপাশি জেলার ও স্থানীয় গণ মাধ্যম কর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন। তবে কামারকাঠীতে বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিতর্কিত মহিলা শিক্ষিকা কাকুলি রানী মিস্ত্রিরির বিষয়ে উপস্থিত সকলেই নিন্দা জ্ঞাপন করেন। স্পর্শ কাতর বিষয় নিয়ে স্বরূপকাঠি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেনের সময় উপযোগী চিন্তা ভাবনায় মুগ্ধ সমগ্র এলাকার বেশীরভাগ লোকজন। স্কুল কর্তৃপক্ষ,  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপস্থিত শীর্ষ নেতৃবৃন্দ সহমর্মিতা সহকারে স্কুল শিক্ষিকার অপরাধ আপাতত প্রমাণ হওয়ার পর তাৎক্ষণিক সমাধান স্বরূপ সাময়িক ভাবে দায়িত্ব থেকে অভ্যাহতি দেওয়া হয়।   তবে  স্কুল কর্তৃপক্ষ পরবর্তী সময়ে আইনের ধারা অনুযায়ী   চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন। এদিকে চমৎকার এবং সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর স্থানীয় অভিভাবক সহ কোমলমতি শিক্ষার্থীরাও বেজায় খুশি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেনের সাথে কথা হয় গণ মাধ্যম কর্মীদের। তিনি অকপটে বলেন পরিস্থিতি অনুযায়ী আমরা সময় উপযোগী চিন্তা ভাবনা করে আপাতত সহকারী শিক্ষিকাকে দায়িত্ব থেকে অভ্যাহতি দেওয়া হয়। তবে সমগ্র বিষয়টি খুবই স্পর্শ কাতর। সবকিছু   যাছাই বাছাই করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেই  উপস্থিত সকলকের সন্মতি ক্রমে। সকলকেই  আশ্বস্ত করতে সক্ষম হই আমরা সকলেই। এব্যাপারে প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক বাবু সুনিল বরণ হালদার গণ মাধ্যম কর্মীদের বলেন সমগ্র বিষয়টি খুবই স্পর্শ কাতর। আর সেই কারণে সমগ্র বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উপর ন্যাস্ত করা হয়। স্যারের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হিসেবে গণ্য।  অবশ্য ভিন্ন কথা বলেন স্কুল কমিটির আহবায়ক মোঃ আঃ রব গণ মাধ্যম কর্মীদের জ্ঞাতার্থে বলেন, আসলেই সমগ্র বিষয়টি লজ্জা জনক। ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করা ঠিক নয়।আজকের ঘটনা নিয়ে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোন শিক্ষকরা বাড়াবাড়ি করার সাহস পাবে না।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

উপদেষ্টা মন্ডলীঃমোঃ দেলোয়ার হোসেন খাঁন(হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ,প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান)
ডঃ দিলিপ কুমার দাস চৌঃ ( অ্যাডভোকেট,সুপ্রিম কোর্ট ঢাকা)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতিঃ অ্যাডভোকেট সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী ।।আইন সম্পাদকঃ অ্যাডভোকেট আবু সালেহ চৌধুরী।।
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: আজির উদ্দিন (সেলিম)
নির্বাহী সম্পাদক: দিলুয়ার হোসেন।। ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মোছাঃ হেপি বেগম ।I বার্তা সম্পাদক: মোঃ ছাদিকুর রহমান (তানভীর)
প্রধান কার্যালয় ২/২৫, ইস্টার্ণ প্লাজা,৩য়-তলা ,আম্বরখানা সিলেট-৩১০০।
+8801712-783194 dailyhumanrightsnews24@gmail.com