Sun. Oct 24th, 2021

কয়রায় বেড়ীবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে ৪০ গ্রাম।

কয়রা (খুলনা) সংবাদদাতা মোক্তার হোসেন। কয়রা উপজেলা সুন্দর বনের নিকটবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত। চারদিকে নদী বেষ্টিত। এখানকার আদিবাসীরা বিরূপ প্রতিকুল পরিস্থিতিতে বসবাস করে আসছে।
ইয়াসের মত বড় ঝড়ের চিন্তা তাদের মাথায় নেইতাদের একটাই চিন্তা বেড়িবাঁধ ভাঙার। দূর্বল বেড়ীবাঁধ নিয়ে আতঙ্কে আছে কয়রাবাসিরা।জোয়ারে পানি বৃদ্ধি পেলেই বেড়ীবাঁধ উপচে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে সম্পূর্ণ এলাকায় প্লাবিত হয়ে পড়ে।
ইয়াসের বেশ কিছু দিন আগে জোয়ারের পানিরাস্তায় চুয়ে ভিতরে পানি প্রবেশ করতে করতেখাদ সৃষ্টি হয়ে নরম মাটি পানি পেয়ে ধ্বস নেমেবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়ে পড়ে পাশ্ববর্তী এলাকা।সেই রেশ কাটতে না কাটতেই সামনে হাজির হয়ঘূর্ণিঝড় ইয়াস।
ইয়াস নিয়ে চিন্তা তাদের না। চিন্তা শুধুমাত্র বেড়ীবাঁধ ভাঙার। বেড়ীবাঁধ ভাঙ্গলেই তাদেরআর ভোগান্তির স্বীমা থাকে না।
ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রবল স্রোতে বেড়িবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে কয়রাবাসী। পানি বন্দি হয়ে পড়েছে শত শত পরিবার। বিনষ্ট হয়েছে মাছের ঘের ফসলের মাঠ।
ঘটনাটি ঘটেছে গত কাল সকালে, কয়রায় দশালিয়ায়। এখানে বেড়ীবাঁধ ছিল খুবই দূর্বলকিছুদিন আগে এখান থেকে বাঁধ ভাঙার খবর পাওয়া গেছে।
কয়রা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বলেন, তার ইউনিয়নের মধ্যে রাস্তা উপছে পানি প্রবেশ করার উপক্রম হলে এলাকাবাসীদের সাহায্যে পানি প্রবেশ বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছে।কয়রার বিভিন্ন স্থানে বেড়ীবাঁধ ভাঙার খবর পাওয়া গেছে,। মঠবাড়িয়ায় পবনা বেড়ীবাঁধ,ভেঙে এলাকা প্লাবিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসীরা।
মহেশ্বরীপুরের শেখের টেক,নয়ানি,কালিবাড়িদূর্বল বেড়ীবাঁধ ভাঙার খবর পাওয়া গেছে বলে জানান এলাকাবাসী। তবে এই ইউনিয়নে তেমন কিছু আতঙ্কজনক ঘটনা ঘটেনি।
গতকাল রাতে কয়রার মহারাজপুর ইউনিয়নের দশালিয়া বেড়ীবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে শত শত পরিবার। তাঁরা এখন পানি বন্দি হয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে। বিনষ্ট হয়েছে মাছের ঘের ফসলের মাঠ।দূরবীসহ জীবন যাপন করছে বলে এলাকাবাসীর অভিমত।
এই এলাকায় বিভিন্ন স্থানে গিয়ে জানা গেছেতাদের বেড়িবাঁধ ছিল খুবই দূর্বল। টেকসই বেড়ীবাঁধ না থাকার কারণে কয়রা প্লাবিত হয়েছে বলে জানান।অসহায় মানুষের মাঝে গিয়ে জানা গেছে,জয়পুর গ্রামের প্রাক্তন শিক্ষক আলহাজ্ব সুরাতআলীর কাছ থেকে তিনি তার বিল্ডিং বাড়ি ছেড়ে একটি কালভার্টের উপর জীবন যাপন করছে। কোন প্রশাসন তাদের খোঁজ খবর নেন নি।
এদিকে হোগলা হাটের কাছে যেয়ে জানা গেছে তাদের অবস্থার কথা জানতে একজন জানান, আমাদের এখানে বেড়ীবাঁধ গুলো টেকসই না থাকার কারণে কয়রা উপজেলা বেড়িবাঁধ ভাঙার কবলে পড়ে। বাগালী ইউনিয়নের খবর জানতে তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করছি যাতে পানি না প্রবেশ করতে পারে তার জন্য রাস্তায় মাটি দিয়েছি।
বামিয়া চৌরাস্তা থেকে ভুক্তভোগীরা জানান,বায়লারহানিয়া ও মাদারবাড়ীয়া সীমান্ত থেকে প্রবল পানির স্রোতের চাপে রাস্তাটি উপচে বামিয়া হয়ে বাগালী ইউনিয়নের কলাপাতায় প্লাবিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসীরামানবেতর জীবন যাপন করছে বায়লারহানিয়া,ও দশালিয়ার গ্রামের মানুষেরা।
কয়রাবাসিদের দাবি টেকসই বেড়ীবাঁধ নির্মাণ করে, ভোগান্তির শিকার হতে মুক্তি পেতে।মাননীয় সংসদ সদস্যের কাছে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি যাতে অচিরেই টেকসই বেড়ীবাঁধ নির্মাণ করে কয়রাবাসির দূর্ভোগের হাত থেকে রক্ষা করতে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে প্রতিনিধিকে জানান এলাকাবাসী।
বিষয়টি অতি জনগুরুত্বপূর্ণ বিধায় মাননীয় সংসদ সদস্যের কাছে আবেদন জানানো হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

উপদেষ্টা মন্ডলীঃমোঃ দেলোয়ার হোসেন খাঁন(হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ,প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান)
ডঃ দিলিপ কুমার দাস চৌঃ ( অ্যাডভোকেট,সুপ্রিম কোর্ট ঢাকা)
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতিঃ অ্যাডভোকেট সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী ।।আইন সম্পাদকঃ অ্যাডভোকেট আবু সালেহ চৌধুরী।।
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: আজির উদ্দিন (সেলিম)
নির্বাহী সম্পাদক: দিলুয়ার হোসেন।। ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মোছাঃ হেপি বেগম ।I বার্তা সম্পাদক: মোঃ ছাদিকুর রহমান (তানভীর)
প্রধান কার্যালয় ২/২৫, ইস্টার্ণ প্লাজা,৩য়-তলা ,আম্বরখানা সিলেট-৩১০০।
+8801712-783194 dailyhumanrightsnews24@gmail.com