Sun. Sep 20th, 2020

পর্যটন ঘাটলা” নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তরে শুভ উদ্বোধন করেন সংসদীয় আসন মৌলভীবাজার ৩ এর মাননীয় সংসদ সদস্য নেছার আহমদ।

তরফদার মামুন মৌলভীবাজার থেকেঃসোয়াম্প ভিলেজ অন্তেহরি পর্যটন স্পটে “পর্যটন ঘাটলা” নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তরে শুভ উদ্বোধন করেন সংসদীয় আসন  মৌলভীবাজার ৩ এর মাননীয় সংসদ সদস্য নেছার আহমদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলার সুযোগ্য জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মল্লিকা দে, রাজনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার….. রাজনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল হাসেম,  ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নকুল চন্দ্র দাস, জেলা সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি দৈনিক বাংলার দিন পত্রিকার সম্পাদক বকসি ইকবাল আহমদ, চ্যানেল এস এর পরিচালক খালেদ চৌধুরী, সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। প্রধান অতিথি বলেন হাওর পারের গ্রামেটি পর্যটন জেলার অপুর্ব নৈসর্গিক  সৌন্দর্যের দীপে পরিনত হতে যাচ্ছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশ ব্যয়াপি উন্নয়নের অংশ হিসেবে এই গ্রামে উন্নয়নের চোঁয়া লেগেছে, দেশী-বিদেশী    পর্যটকদের আগমনে এই এলাকায় নতুন নতুন কর্ম সংস্থান সৃষ্টি হবে,   অর্থনৈতিক উন্নয়ন হব, বেকার সমস্যা দূর হবে। অপরূ সৌন্দর্যর  জলে ভরপুর এই  গ্রামটিকে  পর্যটন এলাকায় ঘোষণা দিয়ে দূত কাজ এগিয়ে নেওয়ায় জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিনকে ধন্যবাদ জানান।               জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন বলেন, নৌকা যোগে জল ভ্রমণের জন্য এই এলাকাটিকে আকর্ষণীী করে তুলা হবে,  ভ্রমণ পিয়াসী দেশী-বিদেশী পর্যটকদের নৌকায় উটানামার সুবিধার্থে একটি ঘাট তৈরির ভিত্তি প্রস্তরের শুুভ উদ্বোধন মাধ্যমে আরও দশটি ছোট ছোট প্রজেক্টের মাধ্যমে পর্যটন এলাকায় সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা হবে। হাওর পারের এই গ্রামটি                চতুর দিকে পানি, মধ্যে মধ্যে বাড়ি হিজল আর করছ গাছের বেষ্টনী শীতকালীন অতিথি পাখির  কলকাকলীতে মুখরিত হাওর জলপথের অপরূপ সৌন্দর্য্যের জলের গ্রাম অন্তেহরি, রাজনগর ও মৌলভীবাজার উপজেলার সংযোগ স্থল কাওয়া দীগি হাওর পারে এই গ্রামটি।  রাজনগর উপজেলার উত্তর পশ্চিমের শেষ সিমান্তে, গ্রামটিতে বছরের আট মাস জলে ভরপুর থাকে, বর্ষাকালে চলাচলের জন্য প্রধান বাহন নৌকা। বর্ষা মৌসুমে গ্রামের দৃশ্য দেখে মনে হয় সাগরের মধ্যে একটি  দীপে গ্রামটি জলে ভাসছে।  নৌকাযোগে জলে ভ্রমণের জন্য এজেলায় একমাত্র পর্যটন গ্রাম অন্তেহরি,                গ্রামটিতে  একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে,  একটি হাইস্কুল ও একটি কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে,  পাশের গ্রামটি কাদিপুর গ্রাম মৌলভীবাজার সদর উপজেলার উত্তর পূর্বের শেষ সিমান্ত।      দুটি গ্রামের একি রূপ সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন আদিকাল থেকে বসবাস করে আসছেন। কৃষি কাজ আর মাছ ধরা, দরিদ্র সীমায় এখনও কাদিপুরের বসবাসকারী তাদের আয়ের প্রধান উত্স হাওর থেকে মাছ ধরা ও কৃষি কাজ করা,     অন্তেহরি গ্রামে বসবাসকারী কোটিপতি থেকে আছেন হতদরিদ্র, তাদের আয়ে সিংহ ভাগ আসে কৃষি ব্যবসা থেকে  অন্তেহরি গ্রামের অধিকাংশ লোক  শিক্ষার আলয় আলোকিত হয়ে   জেলা ও উপজেলা  শহরে ব্যবসা ও চাকুরির করছেন, সেই সুবাদে গ্রাম ছেড়ে শহরে   বসবাস করেন, দুটি গ্রাম পাশাপাশি হলেও দুই উপজেলায় দুটি গ্রামের   অবস্থান। কাদিপুর গ্রামটি মৌলভীবাজার সদর উপজেলার উত্তর পূর্বের শেষ সিমান্তে, গ্রামটিতে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। অন্তেহরি গ্রাম রাজনগর উপজেলার উত্তর পশ্চিমের শেষ সিমান্তে অবস্থান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

উপদেষ্টা মন্ডলীঃমোঃ দেলোয়ার হোসেন খাঁন(হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ,প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান)
ডঃ দিলিপ কুমার দাস চৌঃ ( অ্যাডভোকেট,সুপ্রিম কোর্ট ঢাকা)
রজত কান্তি চক্রবর্তী সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতিঃ অ্যাডভোকেট সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী ।।আইন সম্পাদকঃ অ্যাডভোকেট আবু সালেহ চৌধুরী।।
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো: আজির উদ্দিন (সেলিম)
নির্বাহী সম্পাদক: মোস্তাক আহমদ।। ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: মোঃ দিলোয়ার হোসেন ।I মহিলা সম্পাদক: মোছাঃ হেপি বেগম ।I বার্তা সম্পাদক: .........................
প্রধান কার্যালয় ২/২৫, ইস্টার্ণ প্লাজা,৩য়-তলা ,আম্বরখানা সিলেট-৩১০০।
+8801712-783194 ... 01304006014 dailyhumanrightsnews24@gmail.com
JS security